ঐতিহ্যের খাদির রূপ খুলছে আধুনিকতায়। আভিজাত্য কমেনি; বরং তৈরি হচ্ছে নানা রকম পোশাক। শীত শুধু নয়, গরমকালের উপযোগী পাতলা খাদিও তৈরি হচ্ছে এখন। ডিজাইনারদের হাত ধরে ঘটছে খাদির রূপান্তর।

সুতা তৈরি থেকে তাঁতে কাপড় বোনা—পুরো প্রক্রিয়া হাতে হাতে। খাদি কাপড়ের মূল বৈশিষ্ট্য এটিই। এর আধুনিক উপস্থাপনায় অভিজাত ভাব কমেনি; বরং যোগ হয়েছে বৈচিত্র্য। ঐতিহ্যের ধারাও রয়েছে। পাঞ্জাবি আর চাদরের বাইরেও খাদি কাপড় দিয়ে বৈচিত্র্যময় পোশাক বানানো সম্ভব, সেটা দেখিয়ে দিয়েছেন এ দেশের ডিজাইনাররা। ফ্যাশন ডিজাইনারস কাউন্সিল অব বাংলাদেশের আয়োজনে চার বছর খাদি নিয়ে যে জমকালো ফ্যাশন শো ও প্রদর্শনী হয়েছে, সেগুলোতে দেখা গেছে ফিউশনধর্মী কাজ।

স্কার্ট, টপ আর আউটারওয়্যার—তিনটিই খাদি কাপড়ে তৈরি। ট্রাইবাল লুক চলে এসেছে পুরো পোশাকে। কুচি দেওয়া লম্বা স্কার্ট। আউটারওয়্যারটির কাটে অনেক ভাঁজ। পুরো পোশাকেই রয়েছে কাপড়ের রঙে ছাপা (সেলফ প্রিন্ট)।ব্লাউজটি চান্দিনার খাদি কাপড়ে তৈরি। ফ্রিল দেওয়া। এটি চাইলে স্কার্টের সঙ্গে পরা যায়। শাড়িটি ৮০ কাউন্টের সুতায় তৈরি। পুরো শাড়ির ওপর খাদি সুতা দিয়ে ডোরাকাটা নকশা, স্ক্রিন প্রিন্টের প্যাচওয়ার্ক। ক্রুশকাটার কাজ শাড়ির চারপাশে। আঁচলে একই প্রিন্টের কাপড় দিয়ে ফ্রিল দেওয়া। ডোরাকাটা নকশার মধ্যে সাদা ছাপা কোমল একটা ছোঁয়া দিয়ে গেছে।